স্ত্রীর মাথা কেটে ব্যাগে ভরে সোজা থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করেছেন এক ব্যক্তি। সোমবার ভারতের পশ্চিমবঙ্গের চব্বিশ পরগনায় এ ঘটনা ঘটেছে।

অভিযুক্ত ওই ব্যক্তির নাম অভিজিৎ দাস। ওই দম্পতির তিন বছরের এক মেয়ে রয়েছে।

ভারতীয় গণমাধ্যমের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আজ ভোরে অভিজিৎ দাস পাথরপ্রতিমা থানায় আসেন। এরপর দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যের কাছে জানতে চান উচ্চপদস্থ কোনো কর্মকর্তা আছেন কি না। পরে তিনি পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেন।

এ সময় অভিজিৎ তার স্ত্রীর গলা কেটে খুন করার কথা স্বীকার করেন। পুলিশের সঙ্গে যখন তিনি কথা বলছিলেন, তখন পিঠে থাকা স্কুল ব্যাগ থেকে কাটা মাথা বের করে তা পুলিশকে দেখান এবং তাকে গ্রেপ্তার করতে বলেন। আকস্মিক এমন ঘটনায় কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যরা হতবাক হয়ে যান।

পরে লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ এবং ওই নারীর স্বামীক গ্রেপ্তার করে। কিন্তু ঠিক কী কারণে ওই ব্যক্তি এমনটি করেছেন এখনো জানা যায়নি। তবে হত্যার কারণটি জানতে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।